“রাজস্থানের মাটিতে এসে পরা অদ্ভুত দর্শন রহস্যময় ধাতব চাঁই ঘিরে চাঞ্চল্য”

HnExpress ২১শে জুন, অরুণ কুমার, বিশেষ প্রতিবেদন ঃ রহস্য যেন বরাবরই রণভূমি রাজস্থানের বুকে লুকিয়ে। এদিন আকাশ থেকে আচমকাই একটি উল্কাপিণ্ডের মতো অদ্ভুত দর্শন রহস্যময় বস্তু উড়ে এসে পড়ে মাটিতে। যার আওয়াজে ঘটনাস্থল থেকে প্রায় দু কিলোমিটার দূর পর্যন্ত কেঁপে ওঠে। রাজস্থানের মাটিতে এই রহস্যময় ধাতব চাঁইকে ঘিরে ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য। জানা গিয়েছে রাজস্থানের সাঞ্চোর শহরে আকাশ থেকে উড়ে এসে পড়া এই রহস্যময় ধাতব বস্তুটির ওজন ছিল প্রায়কেজির মত।

একদিকে যখন ২১শে জুন এক মহাজাগতিক ঘটনার সাক্ষী হয়ে রইল প্রায় গোটা বিশ্ব, ঠিক তার আগেই আরও এধরনের এক রহস্যময় মহাজাগতিক ঘটনা ঘটে গেলো খোদ ভারতের রাজস্থানে। গত শুক্রবার সকালে আচমকাই আকাশ থেকে বিশাল এক চাঁই এসে পড়ে মরু রাজ্যের এই শহরটিতে। তার তাপে ঝলসে যায় মাটি সংলগ্ন কিছু ঘাস। বিকট শব্দে কেঁপে উঠে গোটা এলাকা। ফলে আতঙ্কে ছোটাছুটি শুরু করে দেয় এলাকার স্থানীয় বাসিন্দারা।

শেষ পর্যন্ত রহস্যজনক ওই বস্তুর খবর পেয়ে স্থানীয় পুলিশ-প্রশাসন সেটিকে উদ্ধার করে পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠায়। এবিষয়ে বিশ্বস্ত সূত্রের খবর, গত শুক্রবার সকালে রাজস্থানের সাঞ্চোর শহরে আচমকাই আকাশ থেকে একটি উল্কাপিণ্ডের মতো রহস্যময় বস্তু উড়ে এসে পড়ে। যার ফলে এলাকায় বিকট শব্দের সৃষ্টি হয়। এর আওয়াজ ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ২/৩ কিলোমিটার দূর পর্যন্ত শোনা গিয়েছে।

এলাকাবাসীর মাধ্যমে এই শব্দের খবর পেয়েই হাজির হন প্রশাসনিক কর্তাব্যাক্তিরা। জানা গেছে, ওই বস্তুটির ওজন ছিল প্রায় তিন কেজি। এটি পতনের ফলে মাটিতে প্রায় কয়েক ফুট গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়। তবে বস্তুটি যে কোথা থেকে এল বা তার উৎপত্তিস্থল কোথায়, তা নিয়ে এখনো চলছে জল্পনাকল্পনা। এই ঘটনা প্রসঙ্গে সাঞ্চোরের মহকুমা শাসক ভূপেন্দ্র সিং সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, “ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখি, ওই বস্তুপিণ্ডটি তখনও গরম ছিল, রীতিমতো তাপ বিকিরণ হচ্ছিল।

সুত্রের খবর অনুযায়ী ঠান্ডা হওয়ার পর একটি জারের মধ্যে ভরে সেটিকে পরিক্ষার জন্য থানার উদ্যোগে ল্যাবে পাঠানো হয়। এদিন এই গোটা এলাকা ঘুরে দেখা হয়। প্রাথমিক তদন্তে পর এটুকুই জানা গেছে যে, বস্তুটির উৎপত্তিস্থল আকাশ পথেই। হতে পারে এটি একটি উল্কা পিন্ড। তবে প্রাথমিক ভাবে স্থানীয় একটি ল্যাবে পরীক্ষা নীরিক্ষা করে জানা গিয়েছে যে এই ধাতব বস্তুটি মূলত জার্মেনিয়াম, প্ল্যাটিনাম, নিকেল ও লোহার মিশ্রণ দ্বারা তৈরি।

তবে আরও বিস্তারিত তথ্য পরীক্ষার রিপোর্ট এলেই জানা যাবে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, চলতি বছরের মার্চ মাসে বাংলাদেশ এর চট্টগ্রাম জেলার অন্তর্গত সীতাকুণ্ড উপজেলায় হঠাৎ আকাশ থেকে কমপক্ষে ৩০ কেজি ওজনের এমনই একটি ধাতব বস্তু উড়ে এসে পড়ে। যা প্রায় ১২-১৫ ফুট মাটিতে একটি গর্তের সৃষ্টি করে। উদ্ধার হওয়া সেই ধাতবটির গায়ে লাল ও সাদা রঙের প্রলেপ ছিল বলে জানা গিয়েছে। এধরনের রহস্যময় ধাতব উল্কাপিণ্ডকে ঘিরে ব্যাপক রকম চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে বিভিন্ন মহলে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: