আমি মন্ত্রীত্বের জন্য হ্যাংলা নই ঃ কুণাল ঘোষ



HnExpress নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা ঃ এসএসসি বির্তক নিয়ে তৃণমূলের অন্দরে চলছে ঠান্ডা লড়াই। রবিবার তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে লাইভ করে রাজ্যের মন্ত্রী তথা কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিমের সরাসরি নাম উল্লেখ না করেই আক্রমণ করেন। সেই সঙ্গে শিক্ষাক্ষেত্রের বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সম্পর্কে তিনি আগে যে মন্তব্য করেছিলেন সেটা সঠিক ছিল বলেও দাবি করেন।

ফেসবুক লাইভের শুরুতেই কুণাল ঘোষ অবশ্য আসানসোল ও বালিগঞ্জের উপনির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থীদের হয়ে ভোট চান। সেখানেই তিনি জবাব দেন ফিরহাদ হাকিমকে। কুণাল বলেন, ‘‘২০২১ সালের ভোটে আমি একদিকে সমন পেয়েছি। আরেক দিকে কাঁথিতে দাঁড়িয়ে অধিকারী সাম্রাজ্য এর বিরুদ্ধেও বক্তৃতা দিয়ে গিয়েছি। আমি আমার লড়াই করেছি। আমাকে স্মরণ করাতে হবে না যে, আমি মন্ত্রী নই। আমার মন্ত্রীত্ব নিয়ে কোনও হ্যাংলামি নেই।



যারা মন্ত্রী হতে না পারলে জীবন অসম্পূর্ণ হয়ে গেছে বলে মনে করেন, এসব তাদের দেখাবেন। আমায় এসব মন্ত্রী, বিধায়ক, সাংসদ দেখাবেন না। আমাকে জীবন যা দেখিয়েছে, আমি তাঁর উর্ধে আছি। কিন্তু আমি দলের প্রতি আনুগত্য দেখিয়েছি। জেলে বসে আমি যেমন লড়াই করেছি, তেমনই আমি মাসে দশ হাজার টাকা চাঁদাও দলকে দিয়েছি। ব্যাঙ্ককে নির্দেশ দিইনি চাঁদা দেবেন না। জেল থেকে বেরোনোর পর কেন্দ্রীয় সরকার আমাকে একটি কমিটির চেয়ারম্যান করতে চেয়ে চিঠি দিয়েছিল।

সাংসদ হিসেবে চেয়ারম্যান হলে অসুবিধা ছিল না। কিন্তু সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিলাম।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘আমার বিরুদ্ধে ওঠা যে কোনও অভিযোগের জবাব আমি দেব। যেদিন দেখব আমাকে অতিথি শিল্পী বা ভাড়াটে বক্তা দিয়ে ডিফেন্ড করতে হচ্ছে, সেদিন থুথু ফেলে তাতে ডুবে মরা ভাল।’’ প্রসঙ্গত,কুণাল ঘোষ মন্ত্রিসভার কেউ নন বলে শনিবার মন্তব্য করেছিলেন জনাব ফিরহাদ হাকিম। তার পাল্টা জবাবেই কুণালের এই ফেসবুক লাইভ।

সম্প্রতি শিক্ষাক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি দুর্নীতির অভিযোগের তদন্তভার গিয়েছে সিবিআইয়ের হাতে। আদালতের এমন নির্দেশ প্রসঙ্গে শুক্রবার তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুর পাশে থাকলেও, তাঁর কথা থেকে অনেকেই মনে করেছিলেন কুণাল যেন দায় ঠেলে দিচ্ছেন প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের দিকে। কুণাল তখন বলেছিলেন, ‘‘দলের মহাসচিব তথা তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বিস্তারিত বুঝিয়ে বলতে পারবেন।’’

এর পরে গত শনিবার ফিরহাদ বলেন, ‘‘কুণাল মন্ত্রিসভার সদস্য নন। আমাদের সব দায়িত্ব যৌথ। আমিও সেই মন্ত্রিসভার সদস্য। পার্থদাও মন্ত্রিসভার সদস্য। তাই বিষয়টা পার্থদার একার নয়।’’ ফিরহাদের সেই বক্তব্যেরই জবাব দিতে গিয়ে পাল্টা আক্রমণ শানালেন একদা দুঁদে সাংবাদিক কুণাল ঘোষ।

Leave a Reply

Latest Up to Date

%d bloggers like this: