আজ থেকে সাধারণ মানুষের কাঁধে চাপলো জিএসটির অতিরিক্ত বোঝা —

সাধারণ মানুষের ওপর আরও বেশি করে চাপানো হলো মূদ্রাস্ফীতির বোঝা। “এক কর এক দেশ” এর প্রভাবে এখন নাভিশ্বাস উঠছে মধ্যবিত্ত থেকে নিম্নবিত্তের ঘরে ঘরে।


যেকোনো ধরনের ডিজিটাল বিজ্ঞাপন এর জন্য যোগাযোগ করুন আমাদের সাথে ঃ ৬২৮৯২৪৫০৭৬


HnExpress নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা ঃ আজ থেকে সাধারণ মানুষের কাঁধে চাপলো জিএসটির অতিরিক্ত বোঝা। আজ থেকেই দেশে কার্যকর হচ্ছে নতুন জিএসটির হার। সাধারণ মানুষের ওপর আরও বেশি করে চাপানো হলো মূদ্রাস্ফীতির বোঝা। ফলে বদলে যাচ্ছে বাজারের চাল, ডাল, মুড়ি সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্য। “এক কর এক দেশ” এর প্রভাবে এখন নাভিশ্বাস উঠছে মধ্যবিত্ত থেকে নিম্নবিত্তের ঘরে ঘরে। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে জিএসটি ছাড়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কাউন্সিল।



এক নজরে দেখে নিন কোন কোন জিনিসের দাম কমলো আর কোন জিনিসের দাম বাড়ল। সোমবার ১৮ই জুলাই থেকে GST-র নতুন রেট কার্যকর হচ্ছে সারা দেশ জুড়ে। আজ থেকে যে যে পরিষেবা ও পণ্যগুলিতে বেশি অর্থ ব্যয় করতে হবে আপনাকে তার একটি তালিকা রইল— প্যাকেজ ও ব্র্যান্ডেড বা লেভেলড প্রোডাক্টের উপর ১৮% হারে জিএসটি ধার্য করা হলো। আগে মাত্র ৫% হারে কর ধার্য ছিল। এছাড়াও ডাবের জলের ওপর এবং জুতোর কাঁচামালের উপর ১২% GST নতুন হার প্রযোজ্য হবে।

মানচিত্র, অ্যাটলাস চার্টে ১২% ফি লাগবে। সেখানে প্যাকেটজাত নয়, লেবেলহীন ও ব্র্যান্ডহীন পণ্যগুলি পাচ্ছে জিএসটি থেকে ছাড়পত্র। প্রতিদিন ১০০০ টাকার কম খরচের হোটেল রুমের উপরেও বসছে ১২% কর। যেটি জিএসটি ছাড়ের আওতায় ছিল। এছাড়াও, প্রতিদিন ৫০০০ টাকার বেশি (আইসিইউ বাদে) হাসপাতালের রুম ভাড়ার উপর ৫% জিএসটি ধার্য করা হবে। সোলার ওয়াটার হিটারে এখন ১২% জিএসটি লাগবে, যা আগে ৫% ছিল।



এছাড়াও প্রিন্টিং বা আঁকার কালি সহ ধারালো ছুরি, কাগজ কাটার ছুরি, পেন্সিল শার্পেনার, এলইডি ল্যাম্প, আঁকার ও মার্কিংয়ের জন্য ব্যবহৃত পণ্যগুলির উপর ১৮% হারে কর লাগু হলো। সোলার ওয়াটার হিটারগুলিতে এখন থেকে ১২% জিএসটি চার্জ দিতে হবে। রাস্তা, সেতু, রেলপথ, মেট্রো, বর্জ্য শোধনাগার ও শ্মশানের কাজের চুক্তিতে ১৮% জিএসটি লাগবে এখন থেকে। যা আগে মাত্র ১২% ছিল। তবে ৫% কর কমানো হয়েছে রোপওয়ে ও নির্দিষ্ট অস্ত্রপচারের যন্ত্রের মাধ্যমে পণ্য ও যাত্রী পরিবহণের ওপর।



জ্বালানি খরচ সহ পণ্য পরিবহণের জন্য ব্যবহৃত ট্রাক, যানবাহনে এখন ১৮% এর পরিবর্তে ১২% জিএসটি দিতে হবে। এদিকে কোথাও অতিবৃষ্টি, আবার কোথাও অনাবৃষ্টিতে চাষাবাদের অবস্থা শোচনীয়, তারই মধ্যে গোদের উপর বিষফোঁড়া নতুন জিএসটি রেট। চাল, ডাল, মুড়ি সহ সাধারণ মানুষের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্যবৃদ্ধিতে স্বভাবতই মধ্যবিত্তের কপালে ফেলেছে চিন্তার ভাঁজ। মুদ্রাস্ফীতিতে শ্রীলঙ্কার পরেই কি ভারতের স্থান?

Comments

Leave a Reply