১৭০ কিমি. বেগে আসতে পারে সুপার সাইক্লোন! জেলা প্রশাসন তৎপর এই দুর্যোগ মোকাবিলায়

HnExpress ১৯ মে, অভিজিৎ হাজরা, হাওড়া ঃ ১৭০ কিমি. বেগে আসতে পারে সুপার সাইক্লোন! জেলা প্রশাসন তৎপর এই দুর্যোগ মোকাবিলায়। প্রসঙ্গত, এই মুহূর্তে বেড়েই চলছে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। এই রাজ্যেও তার ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। আর এই সংক্রমণকে রুখতে বিগত দু’মাস ধরে চলছে এক টানা লকডাউন। কলকারখানা, অফিস, বাজার, দোকানপাট, স্কুল, কলেজ সব বন্ধ। অন্যদিকে মানুষের সঞ্চিত অর্থও প্রায় নিঃশেষ।

দিন আনা, দিন খাওয়া মানুষগুলো আজ মহা সংকটে। কেউ আধপেটা, তো কেউ অনাহারেই দিন কাটাচ্ছে। ঠিক সেই সময় পরিস্থিতি যখন আস্তে আস্তে স্বভাবিক হচ্ছিল, সেই মুহূর্তেই আরও একটি দুর্যোগের ঘনঘটার করাল থাবা বসাল বাংলায়। এই মুহূর্তে সুপার সাইক্লোন “আমফান” প্রবলতর শক্তিবৃদ্ধি করে বাংলার দিকে ধেয়ে আসছে। করোনা পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হওয়ায় পুলিশ প্রশাসন কিছুটা স্বস্তিতেই ছিল।

এবার আবারও ঘুম ছুটে গেল “আমফান” এর তীব্র লম্ফঝম্প আর চোখ রাঙানিতে। সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকা গুলির পাশাপাশি সুপার সাইক্লোন “আমফান” যে হাওড়া, হুগলী সহ দক্ষিণবঙ্গ এর বিভিন্ন জেলাতেও ব্যাপকভাবে প্রভাব ফেলবে, এমনটাই অনুমান করছেন আবহাওয়াবিদরা। আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গেছে, ১৭০ থেকে ২০০ কিমি. গতিবেগ থাকলেও হাওড়া জেলায় প্রাথমিক ভাবে ৭০-৭৫ কিমি. বেগে বইবে এই ঝড়।

তারপর আস্তে আস্তে তার গতিবেগ পৌঁছে যাবে ১০০ কিমিতে। এরই পাশাপাশি চলবে ব্যাপক পরিমাণ বৃষ্টিপাত। হাওড়া জেলা প্রশাসন দূর্যোগ মোকাবিলায় সমস্ত রকম ভাবেই প্রস্তুত। সুত্র অনুযায়ী জানা গেছে, হাওড়া জেলা সদরে “আমফান” মোকাবিলায় হাওড়া পুরসভা একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ইতিমধ্যেই হাওড়া পুরসভার বিভিন্ন বোরোয় বিশেষ কন্ট্রোলরুম খোলা হয়েছে। পর্যাপ্ত পরিমাণে মজুত রাখা হয়েছে গ্যাসকাটার, পাম্পিং মেশিন, এর পাশাপাশি খাদ্যসামগ্ৰী।

বিশেষ ভাবে নজর রাখা হচ্ছে বিপজ্জনক বাড়ি,হোডিং এবং বড় বড় গাছ গুলির দিকে।
হাওড়া প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, হাওড়া পুরসভার পাশাপাশি হাওড়া জেলার বিভিন্ন ব্লকের বি ডি ও, অফিসার, পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি, কর্মাধক্ষ্য, সদস্য, পঞ্চায়েত প্রধান, সদস্য-সদস্যাদের তৎপর থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে WBSEDCL, CESC, দমকল ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যদের।

অন্যদিকে ইতিমধ্যেই উলুবেড়িয়ায় কেন্দ্রীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দলের সাথে প্রস্তুত রাখা হয়েছে যথেষ্ট সিভিক ভলেন্টিয়ার, রাজ্য সিভিল ডিফেন্সের সদস্যদের। সুত্র থেকে জানা গেছে, উলুবেড়িয়ায় জলের পাউচ প্রস্তুতকারক একটি মেশিনও মজুত করা হয়েছে। হাওড়ার জেলা প্রশাসনের তরফে খোলা হয়েছে বিশেষ কন্ট্রোল রুম।

 

Leave a Reply

%d bloggers like this: