ব্যাঙ্ক অফ বরোদা আয়োজিত মেলা “প্রপার্টি এক্সপো”র উদ্বোধন সিসি ১-এ



HnExpress নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা ঃ রবিবার সল্টলেকের সিটি সেন্টার ১ এর প্রাঙ্গণে ব্যাঙ্ক অফ বরোদার পক্ষ থেকে প্রপার্টি এক্সপো নামক দু’দিনব্যাপী একটি মেলার আয়োজন করা হয়। এই অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন পরিবহন তথা আবাসন দপ্তরের মন্ত্রী জনাব ফিরহাদ হাকিম, হিডকোর চেয়ারম্যান দেবাশীষ সেন। এদিন এই মেলার মঞ্চ থেকে মন্ত্রী জানান যে, আগামীতে এই ধরনের এক্সপো বাংলার বিভিন্ন প্রান্তরে ছড়িয়ে দিতে হবে। আর তার মূল কারণ হচ্ছে করোনা আবহে গত দু’বছর ধরে বাড়ি কেনার ক্ষেত্রে রাজ্যের বাজার প্রায় থমকে গিয়েছিল। কিন্তু এবার আস্তে আস্তে সেই হাউসিং সেক্টর বাজারে উঠতে শুরু করেছে।

যদি মানুষ সব সময় রিসিয়েশন নিয়ে চিন্তা করে তাহলে কখনোই তার থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে না। এই পথ খুলতে গেলে ব্যবসা করতে হবে ও ব্যবসার জন্য বিভিন্ন ব্যাংক থেকে লোন নিতে হবে। লোনের ব্যবস্থা যদি তাড়াতাড়ি করা যায় তাতে সাধারণ মানুষের হয়রানি অনেক কম হয়। উদাহরণ হিসেবে লক্ষীর ভান্ডারের কথা বলেন ফিরহাদ হাকিম। একটা বাড়ি তৈরি করতে গেলে ১৩৮ রকম জিনিস লাগে, যেমন বালি সিমেন্ট ইত্যাদি। যদি মানুষ খুব তাড়াতাড়ি লোন পান এবং হয়রানি কম হয় তাহলে হাউসিং সেক্টরের বৃদ্ধি হবে। আর এতে কর্মসংস্থানও বাড়বে।

এছাড়াও যেভাবে কলকাতায় দিনের-পর-দিন গাড়ির সংখ্যা বাড়ছে, সেখানে গ্রীন গাড়ির এই বিষয়টির ওপর জোর দিয়ে যদি কম ইন্টারেস্টে গাড়ি পাওয়া যায় তাহলে পরিবেশের দূষণ মাত্রাও কমবে। এবং যেভাবে পেট্রোল-ডিজেলের আকাশ ছোঁয়া দাম বাড়ছে তাতে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ কিছুটা হলেও কমবে। ব্যাংকের তরফ থেকে ব্যাঙ্ক অফ বরোদার পূর্বাঞ্চলের জেনারেল ম্যানেজার দেবী ব্রত দাস জানান, এই এক্সপো মেলাটি প্রপার্টি লোন এবং গাড়ির লোন এর জন্য করা হয়েছে। রাজ্য সরকার ২% ছাড় দিয়েছে তাদের রেজিস্ট্রেশন এর জন্য এবং ব্যাঙ্ক অফ বরোদার রেট অফ ইন্টারেস্ট ৮ শতাংশ থেকে ৬.৫ শতাংশ নিয়ে এসেছে। অন্যদিকে হাউসিং লোন এবং গাড়ির লোনের ক্ষেত্রে ৭% করা হয়েছে।

কলকাতা ছাড়াও ব্যাঙ্ক অফ বরোদার ইস্টার্ন জোনে বেশ কয়েকটি প্রপার্টি এক্সপোর আয়োজন করেছিল। যেমন, বর্ধমান, শিলিগুড়ি, জোরহাট এবং গুয়াহাটি। ইভেন্টটি মূলত প্রপার্টি ডেভেলপার, কার ডিলার, পাবলিক এবং ব্যাঙ্ককে এক প্লাটফর্মে একত্রিত করার চেষ্টা করার জন্য আয়োজিত করা হয়। তার কারণ, কোভিড-১৯ এর ফলে মহামারীর দীর্ঘস্থায়ী সংক্রামণ এর প্রভাব কাটিয়ে অর্থনীতি ধীরে ধীরে পুনরুজ্জীবিত হচ্ছে। এই ইভেন্টটি গ্রাহকের সুবিধার জন্য এবং রাজ্য ও দেশের উন্নয়নের জন্যই নির্ধারিত হয়েছিল বলে ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষদের বক্তব্য।

এই অনুষ্ঠানে কলকাতা জোনালের জোনাল হেড দেবব্রত দাস বলেন যে, “ব্যাঙ্ক অফ বরোদা আমাদের দেশের খুচরা গ্রাহকদের কাছে পৌঁছানোর জন্য এবং ভারতের ক্ষেত্রে তাদের বিশাল অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ তাদের কাছে পৌঁছানোর জন্য এই ধরনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছে বেশ কয়েক দশক ধরে। অর্থনৈতিক অগ্রগতির লক্ষ্যে এই ব্যাংক বিভিন্ন স্কিমের মাধ্যমে খুচরা গ্রাহকদের আর্থিক সেবা প্রদান করতে এবং খুচরা খাতে উপলব্ধ সুযোগ সম্পর্কে তাদের সচেতন করতে সদা আগ্রহী।

Leave a Reply

Latest Up to Date

%d bloggers like this: