উত্তরবঙ্গের ট্রেন দূর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে নয়, চিকিৎসাধীন বহু যাত্রী

ময়নাগুড়ি ও দোমহনী জংশনের মাঝে লাইনচ্যুত গৌহাটি গামী আপ বিকান এক্সপ্রেস, এ দূর্ঘটনার দায় কার? রেল কর্তৃপক্ষ নাকি অন্য কিছু? উঠছে হাজারো প্রশ্ন—



HnExpress নিজস্ব প্রতিনিধি, উত্তরবঙ্গ ঃ বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় ময়নাগুড়ি ও দোমহনী জংশনের মাঝে ওভারব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় হটাৎই লাইনচ্যুত হয়ে ভয়াবহ দূর্ঘটনার কবলে গৌহাটি গামী আপ বিকানের এক্সপ্রেস। রেল সুত্রে জানা গেছে যে, এই জায়গাটি অতিক্রম করার সময় ট্রেনের প্রধান পাইলট কিছু একটা দেখে দু-দুবার ব্রেক কষে ছিল। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হলো না, উল্টে গেল যাত্রীসহ ট্রেনের ৫-৬টি বগি।

গতকাল থেকেই রেল কর্তৃপক্ষ ও রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব এর নির্দেশে চলছে উদ্ধার কার্য। সর্বতভাবে যোগাযোগ রেখেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি ট্যুইট করে দুর্ঘটনায় মৃতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। এখন পর্যন্ত পাওয়া সুত্রের খবর, এদিন উত্তরবঙ্গের ময়নাগুড়ির দোমোহনিতে বিকানের এক্সপ্রেসের দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে নয় জন৷ এছাড়াও হাসপাতালে গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন প্রায় ৪০ জনেরও বেশি যাত্রী৷ তাদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন প্রায় ২৫ জন যাত্রী।

আহত ও গুরুতর আহতরা জলপাইগুড়ির সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল, উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও ময়নাগুড়ির হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। রেল তরফের বিবৃতি, দুর্ঘটনাগ্রস্ত ট্রেনের বগি থেকে সব যাত্রীদেরই উদ্ধার করা হয়ে গেছে, যদিও এখনও খতিয়ে দেখা হচ্ছে আরও কোনো যাত্রী বগিতে আটকে আছেন কিনা৷ সকাল থেকেই রেল লাইনের উপরে পড়ে থাকা দুর্ঘটনাগ্রস্ত বগিগুলিকে সরানোর কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে৷ পাশাপাশি খতিয়ে দেখা হচ্ছে দূর্ঘটনার মূল কারণ।



পুরাতন কোচ বদলিয়ে কেন আধুনিক কোচ ব্যবহার করা হয়েনি এমন একটি ব্যস্ততম রুটে? ট্রেন ছাড়ার আগে কি আদৌ রেললাইন পরিক্ষা করা হয়েছিল? রেলকর্তৃপক্ষের দায়িত্বশীলতা ও যাত্রী সাধরণের নিরাপত্তা নিয়ে উঠছে এমনই নানা প্রশ্ন! চলছে দূর্ঘটনাগ্রস্থ ট্রেনের চাকা থেকে রেললাইন পরীক্ষা নিরীক্ষার কাজও। কেন এবং কিসের গাফিলতিতে এত বড়ো একটি ভয়াবহ দূর্ঘটনার কবলে ভারতীয় রেল? হাওড়া থেকে বিশেষ ট্রেনে করে আজ সকালেই উত্তরবঙ্গের দুর্ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছান রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব৷

যদিও তিনি দূর্ঘটনাস্থল সরজমিনে তদন্ত না করে মুখ খুলতে নারাজ। ইতিমধ্যেই দুর্ঘটনাস্থলে উপস্থিত রয়েছেন আরও এক কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী জন বার্লা৷ অন্যদিকে, রেল তরফে মৃতদের পরিবারকে পাঁচ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছে৷ পাশাপাশি গুরুতর আহতদের এক লক্ষ টাকা এবং স্বল্প আহতদের ২৫ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেওয়া হয়েছে৷

Leave a Reply

Latest Up to Date

%d bloggers like this: