অসমের দিমা হাসাও জেলায় বন্যায় ভূমিধসে ঘরছাড়া বহু মানুষ



HnExpress নিজস্ব প্রতিনিধি, গুয়াহাটি ঃ অসমের ভয়াবহ বন্যায় ঘরছাড়া কমপক্ষে ২৫ হাজার মানুষ। শনিবার দিমা হাসাও জেলার হাফলং এলাকায় ভূমিধসের ঘটনায় এক  মহিলা সহ তিনজনের মৃত্যুও হয়েছে বলে সুত্রের খবর। অসমের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন যে, “এখন পর্যন্ত, রাজ্যের ছয়টি জেলা —কাচার, ধেমাজি, হোজাই, কারবি আংলং নাগাঁও এবং কামরূপ জেলার ৯৪টি গ্রামের মোট ২৪,৬৮১ জন মানুষ ভিষণরকম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এই বন্যার কবলে পরে।

বর্ষার প্রবেশের আগেই বন্যায় ভাসছে প্রতিবেশী রাজ্য। বিগত কয়েকদিন ধরে লাগাতার বৃষ্টির জেরে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে অসমে। রাজ্যের একাধিক জায়গায় ভূমিধসের খবরও পাওয়া গিয়েছে। আরও জানা গেছে যে, ওই এলাকায় মুষলধারে বৃষ্টিতে রাস্তার একটি অংশ পুরোপুরি ধসে গিয়েছে। “শনিবার অসমের হাফলং এলাকায় ভূমিধসের ঘটনায় একজন মহিলা সহ তিনজন মারাও গেছেন।”



অসম রাজ্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে এখনও পর্যন্ত ভূমিধসের ঘটনায় ডিমা হাসাও জেলার ১২টি গ্রামের প্রায় ৮০টি বাড়ি মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যার জেরে হাফলং এলাকায় ৩ জন মারা গিয়েছেন। রাজ্যের বন্যা কবলিত এলাকায় উদ্ধার ও ত্রাণ এর কাজ চালাতে তৎপর সেনাবাহিনী, আধা-সামরিক বাহিনী সহ এসডিআরএফ, ফায়ার অ্যান্ড ইমার্জেন্সি সার্ভিসগুলি। রাতারাতি খরস্রোতা নদীতে পরিণত হলো সরু খাল, ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে গেলো গোটা রাস্তা!

বিগত কয়েকদিন ধরেই অসম ও প্রতিবেশী রাজ্য মেঘালয়, অরুণাচল প্রদেশে লাগাতার বৃষ্টির জেরে কোপিলি সহ একাধিক নদীর জলস্তর বেড়ে গিয়েছিল। সংবাদসংস্থা এনএনআই-র তরফে একটি ভিডিয়ো টুইট করা হয়েছে, যেখানে দেখা গিয়েছে যে দিমা হাসাও জেলার একটি রাস্তার বেশ কিছুটা অংশ বন্যার জলের তোড়ে ভেসে চলে যাচ্ছে। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই জেলার ১২টি গ্রামে বন্যায় ধস নেমেছে।

Leave a Reply

Latest Up to Date

%d bloggers like this: