কেন্দ্রীয় নয়া প্রকল্প, অগ্নিপথে জ্বলছে গোটা রাজ্য—



HnExpress নিজস্ব প্রতিনিধি, পাটনা ঃ সেনা নিযুক্তির ক্ষেত্রে সম্প্রতি ‘অগ্নিপথ’ নামে নয়া প্রকল্প চালু করলো কেন্দ্র। তার আওতায় নৌ-সেনা এবং বায়ুসেনায় চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ শুরু হলো। এতে বলা হয়, ‘অগ্নিপথ’ প্রকল্পের আওতায় চার বছরের জন্য ‘অগ্নিবীর’ নিয়োগ করা হবে। প্রথম বছর এই ‘অগ্নিবীর’রা পাবেন মাসে ৩০ হাজার টাকা। কিন্তু এই নতুন সেনায় নিয়োগের নয়া প্রকল্প ঘিরে জ্বলছে গোটা বিহার রাজ্য। আর এই অসন্তোষে এবারে গলা মেলালেন নীতীশ কুমারের দল।

প্রসঙ্গত, বিহারে বিজেপি-র সঙ্গে জোট সরকারে রয়েছেন নীতীশ। কিন্তু বিজেপি-র কেন্দ্রীয় সরকারের ‘অগ্নিপথ’ প্রকল্পে শুধু যুবসমাজের ভবিষ্যৎই অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে না, দেশের নিরাপত্তাও বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে অভিমত তাঁদের। তাই এই নয়া প্রকল্প পুনর্বিবেচনা করে দেখার আর্জি জানিয়েছেন তাঁরা। রাজ্য জুড়ে বিক্ষোভে আগুনে একের পর এক ট্রেন যখন দাউদাউ করে জ্বলছে, ঠিক সেই সময় ট্যুইটারে মুখ খোলেন সংযুক্ত জনতা দলের সভাপতি রাজীব রঞ্জন সিংহ।



তিনি লেখেন, ‘অগ্নিপথ প্রকল্প ঘিরে যুবসমাজ এবং পড়ুয়াদের মধ্যে অসন্তোষ, হতাশা এবং অনিশ্চিত ভবিষ্যতের আশঙ্কা স্পষ্ট দেখা দিয়েছে। বিহারও তাঁর ব্যাতিক্রম নয়। কেন্দ্রের উচিত অবিলম্বে অগ্নিপথ প্রকল্পটি নিয়ে পুনর্বিবেচনা করার। কারণ তাদের এই সিদ্ধান্ত দেশের প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তার সঙ্গেও যুক্ত। অন্যদিকে ছাত্রদের সমর্থনে এগিয়ে এসেছেন জেডিইউ সংসদীয় বোর্ডের অধ্যক্ষ উপেন্দ্র কুশওয়াহাক।

তিনি ট্যুইটারে আরও লেখেন যে, আমার মতে কেন্দ্রীয় সরকারের ‘সেনা, নৌসেনা এবং বায়ুসেনায় নিযুক্তির অগ্নিপথ প্রকল্প অবিলম্বে পুনর্বিবেচনা করে দেখা উচিত।’ বিজেপি-র প্রাক্তন শরিক লোক জনশক্তি পার্টির প্রধান চিরাগ পাসোয়ান ইতিমধ্যেই প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংহকে চিঠি লিখেছেন। ‘অগ্নিপথ’ প্রকল্প প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন তিনিও।



এছাড়াও বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জিতন রাম মাঝি বলেন, “অগ্নিপথ প্রকল্প দেশের জন্য যেমন বিপজ্জনক, তেমনই দেশের যুবসমাজের জন্যও বটে। তাই কেন্দ্রীয় সরকারের অবিলম্বে এই প্রকল্প প্রত্যাহার করে নেওয়া উচিত। আমার প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ, অবিলম্বে এই প্রকল্প তুলে নিন। সেনায় নিয়োগে আগের মত যে নিয়ম চলছিল সেই নিয়মই চলুক।

Leave a Reply

Latest Up to Date

%d bloggers like this: