রাজ্যে ফের এক প্রসূতির শরীরে করোনার থাবা, চিকিৎসাধীন এম আর বাঙ্গুর হাসপাতালে

HnExpress ২৭শে এপ্রিল, জয় গুহ, কলকাতা ঃ রাজ্যে ফের আরও এক প্রসূতির শরীরে থাবা বসাল করোনা ভাইরাস। বালিগঞ্জ এর বাসিন্দা ওই মহিলা হাজরার চিত্তরঞ্জন সেবাসদনে প্রথমে ভরতি হন। সেখানে মৃত সন্তান প্রসব করেন তিনি। এদিকে, উপসর্গ মেলায় তাঁর লালারসের নমুনা পরীক্ষা করতে পাঠানো হয়। তাতেই দেখা যায় Covid-19 পজিটিভ তিনি। শনিবার রিপোর্ট হাতে আসে চিকিৎসকদের।

আর গতকাল রবিবার তাঁকে টালিগঞ্জের এম আর বাঙ্গুর হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানেই আপাতত চিকিৎসা চলছে প্রসূতির।
দিনকয়েক আগে হাজরার চিত্তরঞ্জন সেবাসদনে প্রসবের জন্য ভরতি হন ওই প্রসূতি। তাঁর শরীরে করোনার সমস্ত রকম উপসর্গ ছিল। তাই তাঁকে আইসোলেশন ওয়ার্ডেই রাখা হয়। অস্ত্রোপচারও করা হয় তাঁর। তারপরই দেখা যায়, মৃত সন্তান প্রসব করেছেন তিনি।

এদিকে, তাঁর লালারসের নমুনা সংগ্রহ করে এসএসকেএমে পাঠানো হয়। শনিবার তাঁর রিপোর্ট হাতে আসে। তারপরই জানা যায়, সেই মহিলা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। রবিবারই তাঁকে টালিগঞ্জের এম আর বাঙ্গুর হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। হাসপাতাল সুত্রে জানা গিয়েছে, বর্তমানে ওই মহিলার শারীরিক অবস্থা অনেকটাই স্থিতিশীল। ওই মহিলার করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর আসার পরই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন।

ফলতঃ চিত্তরঞ্জন সেবাসদনের আইসোলেশন ওয়ার্ড যত তাড়াতাড়ি সম্ভব জীবাণুমুক্ত করা হবে। অপারেশন থিয়েটারটিও জীবাণুমুক্ত করা হবে। করোনা সংক্রমণ রুখতে ওই প্রসূতির সংস্পর্শে কারা এসেছেন, তাও খতিয়ে দেখছে স্বাস্থ্য দপ্তর। প্রসঙ্গক্রমে উল্লেখ্য, এর আগে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজেও এক প্রসূতির শরীরে পাওয়া গেছিল খতরনাক নোভেল করোনা ভাইরাস। প্রসবের পরই মায়ের শরীরে সেই ভাইরাসের হদিশ পাওয়া যায়।

যার জেরে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে গোটা কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ইডেন বিল্ডিংয়ে। তড়িঘড়ি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল ওই বিল্ডিংটি। সেখানকার রোগীদের নীলরতন সরকার হাসপাতালস, আরজি কর ও এস এস কে এম হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। ওই রোগীদের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা করার কথাও জানানো হয়েছিল।

 

Leave a Reply

%d bloggers like this: