গন্ডার মৃত্যুর পর জলদাপাড়ার জাতীয় উদ্যানে চলছে গন্ডার এবং হাতিরদের অ্যানথ্রাক্সের ভ্যাক্সিনেশন প্রদান

HnExpress ২৪শে ফেব্রুয়ারি, সৌভিক সিংহ রায়, আলিপুরদুয়ার ঃ সম্প্রতি গন্ডার মৃত্যুর পর জলদাপাড়ার জাতীয় উদ্যানে চলছে গন্ডার এবং হাতিদের অ্যানথ্রাক্সের ভ্যাক্সিনেশন দেওয়ার কর্মসূচি। তবে অ্যানথ্রাক্স এর কারণে জলদাপাড়ায় পর পর গণ্ডারের মৃত্যু হয় নি। অন্য কোনো কারণেই গণ্ডারের মৃত্যু হয়েছে। এই মর্মে মেসেজে বন দফতরকে রিপোর্ট দিয়েছে রাজ্যে প্রানী সম্পদ বিকাশ দফতর। তবে ঠিক কি কারণে যে পর পর এমনভাবে গণ্ডারের মৃত্যু ঘটেছে তা এখনও জানাতে পারেনি প্রানী সম্পদ দফতর।

আর এই ঘটনাতে রাজ্যের বনকর্তাদের একটি অংশের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। ফের গণ্ডার মৃত্যু নিয়ে সোমবার অরণ্যভবনে উচ্চপর্যায়ের বৈঠক ডেকেছেন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবার রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “সোমবার ফের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক ডাকা হয়েছে। নতুন কোন গণ্ডারের মৃত্যু বা অসুস্থ হওয়ার খবর নেই। যে এলাকা থেকে এই রোগ ছড়িয়েছে সেই এলাকা বিদ্যুৎবাহী তার দিয়ে দ্রুত ঘিরে দেওয়া হচ্ছে। যদিও এখনও মৃত্যুর কারন জানা যায় নি।

আমরা আশা করব সোমবারের মধ্যে সমস্ত রিপোর্ট চলে আসবে।” রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় যাই বলুন না কেন, এক শ্রেনীর বনদফতরের আধিকারিকরা রাজ্যের প্রানী সম্পদ উন্নয়ন দফতরের ভুমিকা নিয়ে ক্ষুব্ধ। জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যানের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বনাধিকারিক বললেন, “কি কারনে এই মৃত্যু হয়েছে তা জানতে টিস্যু ও রক্তের নমুনা নিয়ে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। বলা হচ্ছে অ্যানথ্রাক্সের কারণে নাকি এই মৃত্যু হয়নি।

তবে কিসের কারনে এই মৃত্যু হয়েছে তা এখনও সঠিক ভাবে বলা যাচ্ছে না। আমরা তো তা জানতেই টিস্যু ও রক্তের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছিলাম।” তবে প্রানী সম্পদ উন্নয়ন দফতর থেকে বলা হচ্ছে সোম মঙ্গলবার নাগাদ পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যাবে। আলিপুরদুয়ার জেলার প্রানী সম্পদ বিকাশ দফতরের ডেপুটি ডাইরেক্টর সজল ভুঁইয়া লেন, “সোম মঙ্গলবার নাগাদ রিপোর্ট পাওয়া যাবে বলে আমাদের জানানো হয়েছে।

রিপোর্ট পাওয়ার পরই আমরা ব্যাবস্থা গ্রহন করব। কিন্তু তা নিয়ে কেউ ক্ষোভ প্রকাশ করলে আমাদের কিছু করার নেই।” উল্লেখ্য ১৬ই ফেব্রুয়ারি থেকে জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যানে গণ্ডারের মরক শুরু হয়েছে। মঙ্গল থেকে বৃহস্পতিবারের মধ্যে জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যানে পাঁচটি স্ত্রী গণ্ডারের মৃত্যু হয়েছে। পর বেছে বেছে স্ত্রী গণ্ডারের মৃত্যুর ঘটনায় গোটা দেশে শোরগোল পড়ে গেছে। জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যানে প্রায় ৩০০ গণ্ডার রয়েছে।

আর গোটা পৃথিবীতে এক শৃংগ গণ্ডারের জন্য বিখ্যাত আলিপুরদুয়ারের জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যান। সেখানে পর পর গণ্ডারের মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলে ব্যাপক উদ্বেগ ছড়িয়েছে। তবে ইতিমধ্যেই অ্যানথ্রাক্সের টিকা দিতে শুরু করেছে বনদফতর। শিশামারা বিটের আটটি গণ্ডারকে এই টিকা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যানে পোষা কুনকি হাতিদেরও এই ভ্যাক্সিন দেওয়া হচ্ছে।

বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যানে হাতি সাফারি। তবে নতুন কোন মৃত্যু বা অসুস্থতার খবর না থাকায় আশার আলো দেখছে রাজ্য বনদফতর। রাজ্যের বন্যপ্রাণী বিভাগের প্রধান মুখ্য বনপাল রবিকান্ত সিনহা বললেন, “নতুন করে গণ্ডার অসুস্থ বা মৃত্যুর খবর আপাতত নেই। পরীক্ষার রিপোর্ট হাতে পেলেই আমরা পরবর্তী ব্যাবস্থা নিতে পারব।”

Leave a Reply

%d bloggers like this: