এবারে নক্ষত্রপতন ভারতীয় রাজনীতিতে, চলে গেলেন ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়

HnExpress ৩১শে অগাস্ট, অরুণ কুমার, কলকাতা ঃ এবারে নক্ষত্রপতন ভারতীয় রাজনীতিতে, প্রয়াত ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ভারতরত্ন প্রাপ্ত প্রণব মুখোপাধ্যায়। আমাদের দেশ এক মূল্যবান রত্নকে হারালো। রাজনৈতিক চানক্য হিসেবেই পরিচিত ছিলেন তিনি। ২০০৮ সালেত লোকসভায় অনাস্থায় ভোটের সময় সবচেয়ে যে মূল্যবান ভাষন দিয়েছিলেন তা তুলনাহীন।

ওনার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড সত্যিই অসাধারণ, ওনার রাজনৈতিক জ্ঞান অসাধারণ, ওনার সততা, নিষ্ঠা এবং তীক্ষ্ণধার বুদ্ধি দেশের অনেক কাজে সফলতা আনতে সক্ষমতা অর্জন করে ছিল। সময়ের নিয়মে একদিন সকলকেই চলে যেতে হয়। ওনাকেও যেতে হলো। আজকের ভারতবর্ষ তথা সমগ্র বাঙালী সমাজ কিন্তু এই চাণক্যকে কোনদিনক ভুলবে না। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে যখন তিনি সর্বোকৃষ্ট ও যোগ্যতম ছিলেন, সেখানে ছলে বলে কৌশলে তাঁকে রাষ্ট্রপতি করে দেওয়া হলো, এমনটাই রাজনৈতিক মহলের মতামত।

কিন্তু জাতীয় কংগ্রেসকে এর মূল্য হয়ে তো দিতে হবে বলে ধারণা রাজনৈতিক মহলের।ভারতের রাজনীতিতে তাঁর অবদান অনস্বীকার্য। বিগত কয়েক দশক ধরে রাজনীতি করেছেন, অথচ সেরকম চর্চিত কোন মলিনতা নেই! সকল দলের কাছে সমান ভাবে গ্রহণযোগ্য ছিলেন।
তিনিই ছিলেন সম্ভবত এই সময়ের একমাত্র রাজনীতিবিদ, যিনি রাজনীতির জন্য রাজনীতি করতেন। আর ততোধিক বাঙালি ছিলেন তিনি মনে-প্রাণে। কুচো মাছের ঝাল, আম কাঁঠাল খাওয়া থেকে দুর্গাপুজোয় চণ্ডীপাঠ সবকিছুর মধ্য দিয়েই বাঙালীয়ানাকে নিজের মধ্যে ধরে রাখতে পেরেছিলেন।

অসাধারণ রাজনৈতিক দূরদর্শিতা, সুতীক্ষ্ম লেখনী শক্তির অধিকারী ছিলেন তিনি। জাতীয় রাজনীতিতে বিরল মেধাচারী ব্যক্তিত্ব ছিল। সদ্য প্রয়াত প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণ অপূরণীয় ক্ষতি। উল্লেখ্য যে, সোমবার তাঁর প্রয়াণের খবর জানিয়েছেন ছেলে ও প্রাক্তন সাংসদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়। গত ৯ই অগস্ট বাড়ির শৌচাগারে পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত পেয়েছিলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি। তারপর থেকেই দিল্লির সেনা হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। স্নায়ুঘটিত সমস্যা দেখা দেওয়ায় গত ১০ অগস্ট তাঁর মাথায় অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল।

১৩ই অগস্ট থেকে কোমায় ছিলেন তিনি। তবে অস্ত্রোপচারের আগে তাঁর শরীরে COVID-19 সংক্রমণও ধরা পড়েছিল। এরপর সোমবার সকালে আর্মি রিসার্চ অ্যান্ড রেফারেল হসপিটালে মেডিক্যাল বুলেটিনে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শারীরিক পরিস্থিতি সম্পর্কে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়, ‘রবিবার থেকেই প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থা খারাপ হয়। গত ১০ অগাস্ট ব্রেন সার্জারি হয় প্রণব মুখোপাধ্যায়ের। তারপর থেকেই গভীর কোমায় আচ্ছন্ন তিনি। ১০ তারিখেই সেনা হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি।

মস্তিষ্কের একটা ক্লট সরাতে তাঁর ব্রেন সার্জারি করা হয়। সেদিনই সার্জারির আগে তাঁর করোনা পরীক্ষার ফলও পজিটিভ আসে। নিজেই ট্যুইট করে সেই কথা জানিয়েছিলেন তিনি। গত কয়েদিনে তাঁর সংস্পর্শে যারা এসেছেন, তাদের সবাইকে করোনা পরীক্ষা করিয়ে নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন তিনি। সার্জারির পর থেকেই কোমায় চলে যান প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি। ফুসফুসে সংক্রমণ এবং রেনাল ডিসফাংশানের সমস্যা দেখা দেয় তাঁর। এর পর থেকেই প্রণব মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে দুশ্চিন্তা বাড়তে থাকে দেশবাসীর মনে।

জানানো হয়, ফুসফুসে সংক্রমণের কারণেই প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। সোমবারই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ২০১২ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত দেশের রাষ্ট্রপতি পদে ছিলেন তিনি। নিজের দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অর্থ, বিদেশ, প্রতিরক্ষার মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের দায়িত্ব সামলানোর পাশাপাশি ভারতের ১৩তম রাষ্ট্রপতি ছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। ২০১৯ সালে তাঁকে ভারতরত্ন সম্মানে ভূষিত করা হয়। মৃত্যুকালে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর।

প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির প্রয়াণে শোকপ্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। টুইটে তিনি লিখেছেন, ‘ওঁনার প্রয়াণ যেন এক যুগের সমাপ্তি। রাষ্ট্রপতি ভবনকে সাধারণের জন্য খুলে দিয়ে ছিলেন তিনি।’ টুইট করে শোকপ্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী লিখেছেন, ‘ভারতরত্ন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণে দেশ শোকাহত।’ এদিন প্রধানমন্ত্রীর স্মৃতিচারণ, ‘২০১৪-তে নয়াদিল্লিতে নতুন ছিলাম আমি। প্রথম দিন থেকেই প্রণব মুখোপাধ্যায়ের আশীর্বাদ ও সমর্থন পেয়েছিলাম। ওঁনার সঙ্গে হওয়া প্রত্যেক আলোচনাই আমি যত্ন করে স্মরণ করব।

তাঁর পরিবার, বন্ধু এবং দেশের বিভিন্ন প্রান্তে তাঁর সমর্থকদের প্রতি আমার সমবেদনা।’
প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণে টুইট করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন, ‘প্রণবদার সঙ্গে সাক্ষাৎ ছাড়া দিল্লি অকল্পনীয়। আর রাজনীতি থেকে অর্থনীতি উনি সব বিষয়ে কিংবদন্তী ছিলেন। তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ থাকব।’ টুইটে শোক জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তিনি লিখেছেন, ‘মাতৃভূমির জন্য প্রণবদার অনবদ্য পরিশ্রম সবসময় মনে রাখা হবে।

তাঁর প্রয়াণ দেশের রাজনীতিতে এক শূন্যতার সৃষ্টি করল।’ পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ও টুইটে শোকপ্রকাশ করে লিখেছেন, ‘একটি যুগের সমাপ্তি ঘটল।’ প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির প্রয়াণে টুইটে শোকপ্রকাশ করেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। এছাড়াও প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী সহ আরও অনেকেই টুইটে শোক প্রকাশ করেছেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: