অবশেষে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী, খোশমেজাজেই খোঁজ নিলেন চিকিৎসক, স্বাস্থ‍্যকর্মী ও সাংবাদিকদের


HnExpress ১৭ই ডিসেম্বর, প্রিয়দর্শী সাধুখাঁ, কলকাতা ঃ অবশেষে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। আর ছুটির পরেই খোশমেজাজেই খোঁজ নিলেন চিকিৎসক, স্বাস্থ‍্যকর্মী ও সাংবাদিকদের। গত ৯ই ডিসেম্বর অসুস্থ হয়ে এতদিন হাসপাতালে থাকার পর গত পরশু ছাড়া পেলেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, তিনি শুধু কমিউনিস্ট পার্টির নেতা কিংবা পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীই ছিলেন তাই নয়, তিনি সম্পর্কে কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের ভাইপো। ১৯৭৭ সাল থেকে ১৯শে মে ২০১১ পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন বিভাগের মন্ত্রী ছিলেন তিনি। পালাবদলের পর থেকে জ্যোতি বসুর উত্তরসূরী হিসেবে নিজের দলের কর্মসূচি ছাড়াও ব্যস্ত থাকতেন বই লেখা ও বই পড়া নিয়ে। সূত্রের খবর অনুযায়ী জানতে পারা যায় মঙ্গলবার অর্থাৎ ১৫ই ডিসেম্বর হাসপাতাল থেকে মুক্তি দেওয়া হয় তাঁকে।

প্রতিদিনের মতোই মঙ্গলবার সকাল ১১টা তে মেডিকেল বোর্ড বসে, চেক আপের পর জানা যায় বর্তমানে রক্তচাপ ও পালস রেট স্বাভাবিক। চিকিত্‍সকরা আরও জানিয়েছেন, সোমবার তাঁর ভালই ঘুম হয়েছে, রাতে তেমন কোনও সমস্যাও হয়নি। বাড়ি ফেরার আগেই চিকিৎসকরা তাকে বারবার পরামর্শ দেন যে খাওয়া-দাওয়া, বিশ্রাম থেকে শুরু করে সময় মতো ওষুধ খাওয়াটা যেন চালিয়ে যান। কারণ এই অনিয়মই তার শরীর খারাপের আসল কারণ।

অসুস্থ হওয়ার আগেই কিছুদিন তাঁর অনিয়ম হয়েছিল বলে জানা গেছে। অনেকদিন ধরেই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে অক্সিজেন মাক্স ব্যবহার করতে হয়। ধূমপান ছেড়ে দেওয়ার কথা বলেন চিকিৎসকেরা। তবে পুরোপুরি কথা না দিলেও চেষ্টা করবেন বলে কথা দিয়েছেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। প্রোটিনের ঘাটতি অনেকটাই, তাই নিয়ম করে খাওয়াটা বেশি প্রয়োজন। তাই রোজকার নিয়মগুলি মেনে চলা জুরুরি বলেই জানাচ্ছেন চিকিৎসকদের একাংশ।

সুত্রের খবর, সম্পূর্ণ সুস্থ শরীরে গত মঙ্গলবার বেলা ১১.৩৫ মিনিট নাগাদ বাড়ি পৌঁছন তিনি। হাসপাতাল ছাড়ার আগে চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী এবং সাংবাদিকদের খোঁজ খবরও নেন। এদিন তিনি বলেছেন, ‘এই কঠিন সময়ে আপনাদের প্রত্যেকের লড়াইকে কুর্নিশ জানাই। নিজেরাও সাবধানে থাকবেন।’ চিকিৎসক কৌশিক চক্রবর্তী ও সৌতিক পান্ডা জানান, আজ বেশ খুশির মেজাজেই ছিলেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁরা আরও বলেন যে, তাঁর এতটা আনন্দে দেখে আমাদের‌ও ভাল লাগছে। অন্যদিকে তাঁর দলের তরফ থেকে সর্বানী সাঁধুখাও হাসপাতাল এর সমস্ত চিকিৎসক, স্বাস্থ‍্যকর্মী ও সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিদের ধন‍্যবাদ জানিয়েছেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: