২১শে জুলাই শহীদ স্মরণে মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে ৫০০ পরিবারকে মাস্ক, স্যানিটাইজার ও বেবিফুড প্রদান

HnExpress নিজস্ব প্রতিনিধি, বারাসাত ঃ ২১শে জুলাই শদীদ দিবস হিসেবে ইতিহাসের পাতায় নিজের জায়গা করে নিয়েছে। মূলত বাম জমানায় বিরোধী মুখ হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উত্থানের পিছনে ২১ জুলাইয়ের অবদান অনস্বীকার্য। কিন্তু ঠিক কী ঘটেছিল এদিন? এর নানান ব্যাক্ষা রয়েছে গোটা রাজনৈতিক মহলে। তবে এক কথায় বলা যায় তৎকালীন সময় নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা আনার জন্য সচিত্র ভোটার পরিচয়পত্রের দাবিতে ২১ জুলাই মহাকরণ অভিযানের ডাক দিয়েছিলেন যুব কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর সেই সময়টা ছিল বাম শাসনকাল, এই অভিযানকে ব্যার্থ করতে সেদিন পুলিশ ব্যারিকেডের পাশাপাশি নির্মম ভাবে গুলিও চালায়। সেই গুলিতে নিহত হন ১৩ জন যুব কংগ্রেস কর্মী। ১৯৯৩ সালের এই ঘটনার পর থেকেই প্রতিবছর এই দিনটিকে ‘শহিদ দিবস’ হিসেবে পালন করে থাকে পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ কংগ্রেস। কিন্তু পরবর্তীকালে কংগ্রেস ছেড়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূল দল গঠন করেন এবং ২১ জুলাইকে ‘শহিদ দিবসে’র মর্যাদা দেওয়া হয়।

তবে একুশের মঞ্চ থেকে সাধারণত দলকেই আগামী দিনের পথ দেখান তৃণমূল সুপ্রিমো। আর এই দিনটিকেই স্মরণে রেখে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করতে এক অভিনব উদ্যোগ নিল তৃণমূল মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির উত্তর ২৪ পরগণা জেলা শাখার সভাপতি দেবব্রত সরকারের অনুমোদনক্রমে মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে।

এই কর্মসূচিতে বারাসাত পৌরসভার অন্তর্গত ৩২ নং ওয়ার্ডের বাড়ি বাড়ি ভ্রাম্যমাণ গাড়ি নিয়ে গিয়ে ৫০০টি পরিবারের হাতে মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও ২০০টি পরিবারের হাতে বেবিফুড তুলে দেন শিক্ষক সমিতির সহ সভাপতি শিক্ষক তপন বৈদ্য। এদিনের এই মহৎ কর্মকাণ্ডের সাক্ষী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির শিক্ষকগণ ও বারাসাতের ৩২নং ওয়ার্ডের বহু তৃণমূল কর্মী সমর্থক।

Leave a Reply

%d bloggers like this: