লকডাউনে মৃত শ্রমিকদের স্মরনে জাতীয় শোক দিবস পালন, দক্ষিণ থেকে উত্তরে

HnExpress ১লা জুন, অরুণ কুমার, উত্তরবঙ্গ ঃ লকডাউনে মৃত শ্রমিকদের স্মরনে জাতীয় শোক দিবস পালন করা হলো দক্ষিণ থেকে উত্তরে। প্রসঙ্গত, এই করোনা মহামারী প্রতিরোধে সারা দেশে সরকারি ভাবে লকডাউন ঘোষণার পর প্রায় সাতশো’রও বেশি শ্রমিক বিভিন্ন ভাবে প্রাণ হারিয়েছেন। বেসরকারি সূত্রে প্রাপ্ত পরিসংখ্যান থেকে যেটা আমরা জানতে পারছি তা হল এই, ৭৪১ জন এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মারা গিয়েছে পথ ও ট্রেন দুর্ঘটনায় কাটা পড়ে, আত্মহত্যা করেছে ১২৬ জন, ক্ষুধা ও আর্থিক অবসাদে মৃত্যু ১৩২ জনের।

এছাড়াও চিকিৎসা ও খাদ্যের অভাবে ৫৯ জন মৃত, বিষাক্ত মদপান করে প্রাণ হারালেন ৫০ জন। আবার “শ্রমিক ট্রেনে” যাত্রা করার সময় প্রায় ২৫ জন মত মারা গেছেন। এই লকডাউন চলাকালীন বিভিন্ন অপরাধ জনিত কারণেও ১৭ জন প্রাণ হারিয়েছেন। অন্যদিকে পুলিশের দ্বারা নির্মম প্রহার এর ফলেও প্রায় ১২ জন শ্রমিক হারিয়েছেন তাদের প্রাণ। এভাবে তথ্যে আরো যত পরিসংখ্যান বলা হয়েছে তা ক্লাসিফাইড হলেও, তার কোন উল্লেখযোগ্য কারণ পাওয়া যায়নি। তবে এছাড়াও ৬৬ জন শ্রমিক প্রাণ হারিয়েছেন বলে সুত্রের খবর।

সব মিলিয়ে ৩১শে মে পর্যন্ত লকডাউন চলাকালীন সময়ে মোট ৭৪২ জন শ্রমিক প্রাণ হারিয়েছেন। একথা জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গ ক্ষেতমজুর সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যা অনুরাধা তলোয়ার। পয়লা জুন সোমবার সারা রাজ্যে শ্রমিকদের স্মরণে জাতীয় শোক দিবস পালনের মাধ্যমে বিভিন্ন দাবিও রাখা হয়েছে সরকার পক্ষ এর কাছে। বিভিন্ন জায়গায় যেমন, পুরুলিয়া থেকে আরম্ভ করে বাঁকুড়া, দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গা ছাড়াও উত্তরবঙ্গের চা বাগান সহ যেসব বিভিন্ন এলাকা রয়েছে, সেখানেও এই শোক জ্ঞাপন অনুষ্ঠান পালন করা হয়েছে।

এদিন কলকাতা, নতুন দিল্লির নীতি আয়োগের সামনে শ্রমিকরা শোক দিবস পালনের মাধ্যমে তাদের দাবি তুলে ধরেছেন। লকডাউনের পরবর্তী সময়ে শ্রমিকদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন তাঁরা। তবে একসাথে এত জন শ্রমিকের প্রাণ চলে যাওয়া এই তথ্যটি সম্পূর্ণ বেসরকারি সূত্রে প্রাপ্ত। তাই সরকারি ভাবে তার যথাযথ পরিসংখ্যান এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি। কিন্তু আমরা জানার চেষ্টা করছি, সেটা পেলেই খবরের মাধ্যমে তা তুলে ধরার চেষ্টা করব। নিত্য নতুন খবরের আপডেট পেতে হলে আপনারা আমাদের সঙ্গে থাকুন, আমরা আরো অনেক নতুন নতুন বিষয় নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হব।

Leave a Reply

%d bloggers like this: