লক ডাউনের মাঝেই চূড়ান্ত আর্থিক সমস্যায় শ্রমিকরা, বকেয়া বেতনের দাবিতে চলছে বিক্ষোভ

HnExpress ১২ই এপ্রিল, সৌরদীপ ব্যানার্জী, বাঁকুড়া ঃ দু’সপ্তাহ চলছে ধরে সম্পুর্ন লক ডাউন। যার ফলে চূরান্ত আর্থিক সমস্যার মধ্যে পড়েছেন কারখানার শ্রমিকরা। এই অবস্থায় বকেয়া দু’মাসের বেতনের দাবিতে বাঁকুড়ার মেজিয়ার নন্দনপুর এলাকায় থাকা একটি বেসরকারি স্পঞ্জ আয়রন কারখানার সামনে এদিন বিক্ষোভে ফেটে পড়লেন শ্রমিকরা। অবিলম্বে বকেয়া বেতন না মিটিয়ে দিলে আরো বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক দেবেন বলে জানান আন্দোলনকারী শ্রমিকরা।

বাঁকুড়া জেলার মেজিয়ার নন্দনপুর এলাকায় দিব্যজ্যোতি স্পঞ্জ আয়রন প্রাইভেট লিমিটেড নামের একটি বেসরকারি স্পঞ্জ আয়রন কারখানায় স্থানীয়দের পাশাপাশি প্রায় তিনশো বহিরাগত শ্রমিকও কাজ করেন। এই শ্রমিকদের মধ্যে ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসের একটা বড় অংশের বেতন বকেয়া আছে। একে গত দু’মাসের মাইনে বন্ধ, তার উপর লকডাউনে স্বাভাবিক ভাবেই শ্রমিকদের আর্থিক অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয়।

 

সুত্রের খবর, শ্রমিকদের অভিযোগ তাঁদের অনেকের কাছেক দুবেলা খাওয়ার মতন পয়সাটুকুও নেই। উপরন্তু দু’মাস ধরে মাইনে না মেলায় অনেক শ্রমিক সময় মতো নিজের পরিবারের কাছেও প্রয়োজনীয় টাকা পাঠাতে পারেননি। ফলে এই লকডাউনের বাজারে চূড়ান্ত সমস্যায় পড়েছেন ভিন রাজ্যে থাকা এই শ্রমিকদের পরিবারগুলিও। ফলে চূড়ান্ত দুরাবস্থার মধ্যে দিন কাটছে শ্রমিকদের।

 

স্থানীয় শ্রমিকদের ক্ষেত্রেও ঠিক একই অবস্থা ঘটছে। সময়মতো বকেয়া মাইনে না মেলায় দোকান থেকে প্রয়োজনীয় রেশন সামগ্রীও কিনতে পারছেন না তারা। এই মতাবস্থায় সংসার চালানো বড়ই দায় হয়ে উঠেছে তাদের কাছে। অভিযোগ, কারখানা কর্তৃপক্ষ বকেয়া বেতন মেটানোর জন্য একের পর এক ডেট দিলেও, মাইনে দিতে টালবাহানা করছে।

 

এই অবস্থায় বাধ্য হয়েই আজ কারখানার গেট আগলে পর পর গা ঘেষাঘেষি করে সোশ্যাল ডিস্টেন্স মেইনটেইন না করেই তার সামনে দাঁড়িয়ে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন বকেয়া পাওনা না পাওয়া শ্রমিকেরা। যদিও, কারখানা কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে বেতন মিটিয়ে দেওয়ার আশ্বাস মিলেছে। তবে এই লকডাউন ওঠার পরেই যে তা মিলবে এমনটাই জানিয়েছেন কারখানার কর্তৃপক্ষ।

 

Leave a Reply

Latest Up to Date

%d bloggers like this: