আশার আলো দেখালেন ফুলেশ্বর “সঞ্জীবন” হাসপাতাল

HnExpress ৪ঠ মে, অভিজিৎ হাজরা, হাওড়া ঃ বিশ্বব্যাপী হাজার হাজার মানুষ করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত। মৃত্যুর সংখ্যা প্রত্যহ লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। পাশাপাশি সুখেরও খবর অনেকেই এই রোগকে পরাস্ত করে সুস্থ-স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসছে। নবজীবন দানের কৃতিত্ব সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল, স্বাস্থ্যকেন্দ্র, নার্সিংহোমের ডাক্তার, নার্স, আয়া, স্বাস্থ্যকর্মী, স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত সকলেই। সেরকমই আশার আলো দেখালেন ফুলেশ্বর “সঞ্জীবন” হাসপাতাল।

বেশ কিছুদিন আগেও করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে এক গর্ভবতী মহিলা হাওড়া জেলার অন্তর্গত উলুবেড়িয়ার ফুলেশ্বরের “সঞ্জীবন” হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। হাসপাতালের চিকিৎসক থেকে নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসা পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত সকলেই এটা নিয়ে বেশ চিন্তিত হয়ে পড়েন, এই ভেবে যে মহিলা সন্তান প্রসব করার পর সেই শিশুর সুস্থতা কতটা! তবে চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থকর্মী এবং স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত সকলের সহযোগিতায় মহিলা নরম্যাল ভাবে কন্যা সন্তানের জন্ম দেন।

পরে সদ্যজাতকের লালারসের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। আর নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসার পর জানা যায় শিশুর রিপোর্ট নেগেটিভ। ফলে সকলেই চিন্তা মুক্ত হন। তাই শিশু কন্যা ও তার মাকে আলাদা ভাবে রেখে চিকিৎসা চলছিল। তবে চিকিৎসার শেষ পর্যায়ে মহিলার লালারস সংগ্ৰহ করে পুনরায় পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। রোগমুক্ত হয়ে পরিবারের আত্নীয়দের আর সঙ্গে নবজাতক শিশু কন্যাকে নিয়ে বাড়ি ফিরলেন।

সেদিন “সঞ্জীবন” হাসপাতাল থেকে ফেরার সময় উপস্থিত ছিলেন, হাওড়া জেলা শাসক মুক্তা আচার্য, হাওড়া গ্ৰামীণ জেলার পুলিশ সুপার সৌম্য বন্দ্যোপাধ্যায়, উলুবেড়িয়া মহকুমা শাসক তুষার সিংলা, উলুবেড়িয়ার দক্ষিণ কেন্দ্র এর বিধায়ক পুলক রায় ও হাসপাতালের সুপার তথা ক্যানসার বিশেষজ্ঞ শুভাশিস মিত্র সহ আরো অনেকেই। এদিন প্রত্যেকেই করতালি সহকারে করোনা মুক্ত এই মা ও শিশু কন্যাকে অভিনন্দন জানান।

 

Leave a Reply

%d bloggers like this: