রবিবার সন্ধ্যায় ঘনীভূত হবে সাইক্লোন আমফান, সতর্কবার্তা আলিপুর হাওয়া দপ্তরের

HnExpress ১৬ই মে, ওয়েদার রিপোর্ট, অরুণ কুমার ঃ সোমবার থেকেই আবহাওয়ার পরিবর্তন হবে এই রাজ্যে। রবিবার সন্ধ্যায় ঘনীভূত হবে সাইক্লোন আমফান, সতর্কবার্তা জাড়ি করেছে আলিপুর হাওয়া দপ্তর। সোমবার থেকে মঙ্গলবারের মধ্যেই গাঙ্গেয় উপকূলে অতিভারী বৃষ্টিপাতের সতর্কতা সম্ভাবনার কথা জানালেন আলিপুর হাওয়া অফিস। অন্যদিকে এরই জেরে মৎস্যজীবীদের উত্তর ও মধ্য বঙ্গোপসাগরে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।

ফণির পরেই এবার আসছে আমফান, ফলে সোমবার থেকেই আবহাওয়ার পরিবর্তন হবে রাজ্যে এমনটাই আবহাওয়া অফিস সুত্রের খবর। মঙ্গলবার উপকূলের জেলা মূলত উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার কিছু অংশ এবং পূর্ব মেদিনীপুরের উপকূলের ঝড়ো হাওয়া বইবে, সঙ্গে বৃষ্টি শুরু হবে। ঘূর্ণিঝড় ‘‌আমফান’ এর জেরে আগামী সোমবার ও মঙ্গলবার পশ্চিমবঙ্গের গাঙ্গেয় উপকূলের জেলাগুলিতে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টিপাতের সতর্কতা জারি করেছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

মৎস্যজীবীদের সোমবার থেকে উত্তর ও মধ্য বঙ্গোপসাগরে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। যারা গভীর সমুদ্রে আছেন তাদের ১৭ তারিখ রাতের মধ্যেই ফিরে আসতে নির্দেশ দিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর। আলিপুর হাওয়া দপ্তর সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ ক্রমশই শক্তি সঞ্চয় করে দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরের মধ্য অংশে রয়েছে। সেখানেই এই নিম্নচাপ গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে। দক্ষিণ ও মধ্য বঙ্গোপসাগরেই আগামীকাল রবিবার সন্ধ্যায় এই গভীর নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে।

থাইল্যান্ড এই ঘূর্ণিঝড় বা সাইক্লোনের নাম দিয়েছে আমফান। রবিবার পর্যন্ত আমফান উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হবে। সোমবার এটি গতিপথ পরিবর্তন করে উত্তর ও উত্তর পূর্ব দিকে অগ্রসর হবে। দক্ষিণ ও মধ্য বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড়ের গতিবেগ হবে ঘণ্টায় আনুমানিক ৭০- ৭৫ কিলোমিটার পর্যন্ত। রবিবার গতি বেগ বেড়ে হবে প্রতি ঘন্টায় ৯০ কিলোমিটার। সোমবার এটি মধ্য বঙ্গোপসাগর এবং দক্ষিণ ওড়িশা ও উত্তর অন্ধ্রপ্রদেশ উপকূলের কাছাকাছি থাকবে বলে জানা গেছে।

সোমবার এর গতিবেগ মধ্য বঙ্গোপসাগরে ৯০ কিলোমিটার এবং অন্ধ্র ও উড়িষ্যা উপকূলে ৬০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায় ঝড়ো হাওয়া বইবার সম্ভাবনা। মঙ্গলবার অর্থাৎ ১৯ তারিখ এটি আরও একটু অগ্রসর হয়ে পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশা খুব উপকূলের কাছাকাছি উত্তর ও মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করবে। এই সময়ে উত্তর ও মধ্য বঙ্গোপসাগরের ভেতরে এর গতিবেগ ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার থাকার সম্ভাবনা।

অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গ-ওড়িশা উপকূলে এর গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ৮০ কিলোমিটার। যদিও আবহাওয়াবিদরা মনে করছেন বুধবারের নাগাদ এই ঘূর্ণিঝড় আমফান স্থলভাগের প্রবেশ করতে পারে। তবে কোথায় কিভাবে এই সাইক্লোন স্থলভাগের প্রবেশ করবে তা এখনও জানাতে পারেননি আবহাওয়াবিদরা। তাঁরা মনে করছেন ১৮ থেকে ২০ তারিখ ঘূর্ণিঝড় বাঁক নিয়ে উত্তর পূর্ব দিকে এগোতে থাকবে। এই পাঁচ-ছ’দিন তামিনাড়ু, ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গের উপকূলবর্তী অঞ্চলে একটানা ৮০ কিমি প্রতি ঘণ্টায় গতিবেগে ঝড়ো হাওয়া বইবে।

অপরদিকে এর কী প্রভাব পশ্চিমবঙ্গে পরবে সে বিষয়ে আবহাওয়া দপ্তরের অনুমান, যেহেতু ১৮ থেকে ২০ তারিখ কিছুটা পূর্ব দিকে বাঁক নেবে ঘূর্ণিঝড়টি তাই তার গতিবিধির ওপর কড়া নজর রাখছেন আবহাওয়াবিদরা। এখনও পর্যন্ত যা পূর্বাভাস তাতে উপকূলীয় অঞ্চলে তো প্রবল ঝড়-বৃষ্টি হবেই, সমুদ্রও উত্তাল হবে। গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের সব জেলাতেই মাঝারি থেকে ভারি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। আবহাওয়াবিদদের মতে এই আমফান ঘূর্ণিঝড় হলো দ্বিতীয় আয়েলা।

 

Leave a Reply

%d bloggers like this: