প্লাস্টিকের ট্রেতে বোরো ধানের চারা তৈরি করছেন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা, সময় এবং ধানের চারা তৈরির খরচ কমে যাওয়ায় কৃষকরা খুশি—

HnExpress অরূপ অধিকারী, গাইঘাটা ঃ প্লাস্টিকের ট্রেতে বোরো ধানের চারা তৈরি করছেন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা, সময় এবং ধানের চারা তৈরির খরচ কমে যাওয়ায় কৃষকরা খুশি। উত্তর ২৪ পরগনা জেলার গাইঘাটা ব্লকের কৃষি দপ্তর এবছর ২১০ বিঘা জমিতে মেশিনের সাহায্যে বোরো ধান রোপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আর এই মেশিনের সাহায্যে ধান রোপণের জন্য প্লাস্টিক ট্রেতে সেই ধানের চারা তৈরি করতে হয়। গাইঘাটা ব্লকের ইছাপুর গ্রামের দুটি স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলার দল এবছর বোরো ধানের চারা তৈরি করার অনুমতি পেয়েছেন।

প্রতি বিঘা ৬০০ টাকার বিনিময়ে, এক বিঘা জমির জন্য প্রয়োজনীয় ধানের বীজ বা চারা তৈরি করে দিচ্ছেন তাঁরা। আর এর ফলে একদিকে যেমন কৃষকদের ধানের চারা তৈরির খরচ অনেক কম হচ্ছে, অন্যদিকে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা সামান্য সময় কৃষি কাজ করে ভালো টাকা রোজগার করছেন। গাইঘাটা ব্লক কৃষি দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গতবছর এই ব্লকে ১৫০ বিঘা জমিতে মেশিনের সাহায্যে বোরো ধানের চাষ করা হয়েছিল।

খরচ কম, রোগ না হওয়া, পোকার আক্রমণ কম এবং ফলন ভালো হওয়ায় এ বছর বহু কৃষক এই বিশেষ পদ্ধতিতেই বোরো ধান চাষ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তাই এ বছর ২১০ বিঘা জমিতে মেশিনের সাহায্যে বোরো ধানের চাষ করা হবে বলে জানা গেছে। আর অন্যদিকে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা জানালেন, সামান্য সময় ব্যায় করে তাঁরা কি ভাবে টাকা রোজগার করছেন। এদিন গ্রামের কৃষক ভোলানাথ পাল জানালেন, স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মাধ্যমে গত দু’বছর ধরে প্লাস্টিকের ট্রেতে বোরো ধানের চারা তৈরি করছেন তাঁরা।

এই সাধারণ পদ্ধতিতে ধানের চারা তৈরি করতে গেলে বিঘা প্রতি যে পরিমাণ টাকা খরচ হয় কৃষকের, তার থেকে অনেক কম পয়সায় চারা তৈরি করা যাচ্ছে। তাছাড়া সময়ও কম লাগছে অনেক। সাথে রোগ বা পোকার আক্রমণও কম হচ্ছে। কৃষকরা জানলেন এর ফলে তাঁরা নিজের জমিতে বোরো ধানের চারার চাহিদা মিটিয়ে সে ধানের চারা অন্য কৃষকদের কম টাকায় বিক্রিও করতে পারছেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: