পথ দুর্ঘটনা রুখতে বাইকের পরে এবারে বাই সাইকেল সচেতনতার অভিযান জলপাইগুড়ি শহরে

HnExpress ৭ই অক্টোবর, অরুণ কুমার, জলপাইগুড়ি ঃ মোটর সাইকেলের পর এবার সাইকেল আরোহীদের দুর্ঘটনার হাত থেকে বাঁচাতে উদ্যোগী হলো জলপাইগুড়ি জেলার পুলিশ প্রশাসন। সম্প্রতি জলপাইগুড়ি পুলিশ সুপার প্রদীপ কুমার যাদব লক্ষ করেন যে, অধিকাংশ সাইকেলে রিফ্লেক্টার লাগানো থাকছে না। ফলে অন্ধকার রাস্তায় দেখতে না পেয়ে বাইক বা অন্যান্য গাড়ির সাথে ধাক্কা খেয়ে সাইকেলের দুর্ঘটনা বেড়েই চলছে।

এই পরিস্থিতির সরোজমিন তদন্তের পরই তিনি নির্দেশ দেন জেলার সমস্ত থানার অধীনে যে সব সাইকেল রয়েছে সেই গুলিতে অবিলম্বে লাল ও হলুদ স্টিকার সাটাতে হবে। এমন নির্দেশ পেয়েই নড়েচড়ে বসে জেলা পুলিশ। জেলার অন্তর্গত বিভিন্ন থানা এলাকায় দিনে ও রাতে সাইকেল গুলিতে রিফ্লেক্টার স্টিকার সাটাতে দেখা যায় পুলিশ কর্মীদেরকে। জলপাইগুড়ি কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত ট্রাফিক ওসি শান্তা শীল বলেন, এই এলাকায় প্রচুর ছাত্র ছাত্রী শ্রমিক ও কৃষক রয়েছে যারা সাইকেলটাই বেশি ব্যবহার করে।

তাই আমরা জলপাইগুড়ি কোতোয়ালি থানার পক্ষ থেকে আজ ডেঙ্গুয়াঝাড় এলাকা দিয়ে এই কর্মসূচির শুভারম্ভ করলাম। রাজু দাস নামে জলপাইগুড়ি এক বাসিন্দা বলেন, সাইকেলে রিফ্লেক্টার না থাকায় বাইক বা গাড়ি চালক ভালো ভাবে অন্ধকারে দেখতে পান না সামনে কি আছে। আর তাই দুর্ঘটনা বাড়ছে। এইমত পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে পুলিশ নিজের উদ্যোগে সাইকেলে রিফ্লেক্টার লাগানোর কাজ করে চলেছে। এর ফলে অবশ্যই দুর্ঘটনা কমবে বলে তিনি মনে করেন।

তাই এটি একটি খুব ভালো উদ্যোগ। এই বিষয় পুলিশকে সাধুবাদ জানান তিনি। এই ঘটনায় জলপাইগুড়ি পুলিশ সুপার প্রদীপ কুমার যাদব টেলিফোনে জানান, সাইকেল দুর্ঘটনার কারণ বিশ্লেষন করে আমরা জানতে পারি বেশিরভাগ সাইকেলে ভালো রিফ্লেক্টার লাগানো থাকছে না। তাই জেলার সমস্ত থানাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এখন থেকে সমস্ত সাইকেল গুলিতে স্টিকার লাগাতে হবে। আমরা বিনামূল্যেই এই স্টিকার লাগাবো। আজ থেকেই এই কর্মসূচী শুরু হয়েছে।

এদিন দুপুর পর্যন্ত জলপাইগুড়ি জেলায় তিন শতাধিক সাইকেলে স্টিকার লাগানো হয়েছে বলে জানান তিনি। এই অভিযানের পর শহরের বিভিন্ন এলাকায় সাইকেল-আরোহীরা নিজ নিজ সাইকেলে রিফ্লেক্টর লাগানোর ক্ষেত্রে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এগিয়ে এসেছেন বলেই সুত্রের খবর।

Leave a Reply

%d bloggers like this: