ফের ট্রেন দুর্ঘটনা, সাড়ে ৪ ঘণ্টার প্রচেষ্টায় মেইন লাইনে শুরু ট্রেন চলাচল

0


HnExpress নিজস্ব প্রতিনিধি, বাঁকুড়া : ফের বড়সড় ট্রেন দূর্ঘটনা। এবার ঘটনাস্থল বাঁকুড়া (Bankura) জেলার ওন্দাগ্রাম স্টেশন (Ondagram station)। লুপ লাইনে চলে আসা দুই মালগাড়ির সংঘর্ষে একটি মালগাড়ির ইঞ্জিন সহ ৬টি বগিই লাইনচ্যুত হয়। তবে অন্য মালগাড়িটিরও ৪টে বগি লাইনচ্যুত হয়েছে বলে জানা গেছে।

এর জেরে ট্রেন চলাচলে বিপত্তি দেখা দিয়েছে খড়গপুর-আদ্রা শাখায় (Kharagpur-Adra Division)। ওড়িশা (Orissa) বালেশ্বরের (Balasore) করোমন্ডল এক্সপ্রেস (Coromandel Express) ভয়াবহ দূর্ঘটনার রেশ কাটেনি এখনো, এর মধ্যেই ফের বাঁকুড়ার (Bankura) ওন্দা স্টেশনের (Onda Station) কাছে লুপ লাইনে দুটি মালগাড়ির সংঘর্ষ। একটি ইঞ্জিন-সহ একটি মালগাড়ির ৬টি বগি লাইনচ্যুত হয়।



একজন চালক আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। সংঘর্ষের ফলে প্ল্যাটফর্ম ও সিগন্যাল রুম ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ছিঁড়ে গেছে রেলের ওভারহেড তার। দুর্ঘটনার জেরে আদ্রা-খড়গপুর শাখায় (Adra Kharagpur Division) ব্যাহত হয় ট্রেন চলাচল। প্রায় সাড়ে ৪ ঘণ্টা চেষ্টার পর মেইন লাইনে স্বাভাবিক হয় ট্রেন চলাচল।

স্থানীয় সূত্রের জানা গেছে, ভোর ৪টেয় বাঁকুড়ার (Bankura) ওন্দা স্টেশনের (Onda Station) কাছে লুপ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা মালগাড়ির পিছনে এসে ধাক্কা মারে বাঁকুড়ার দিক থেকে আসা আরেকটি মালগাড়ি। সাথে সাথেই ইঞ্জিন-সহ একটি মালগাড়ির ৬টি বগি লাইনচ্যুত হয়। স্থানীয়রাই ছুটে এসে দুই চালককে উদ্ধার করেন বলে জানা গেছে।



এখন প্রশ্ন উঠছে, জুনের প্রথমেই এত বড় একটা ট্রেন দুর্ঘটনার পরেও একই লাইনে দুটি ট্রেন কীভাবে আসতে পারে? কার গাফিলতি, রেল সিগন্যাল নাকি লোকো পাইলট? এর আগের ভয়াবহ দুর্ঘটনায় প্রায় ২৮০ জনের মৃত্যু হয়েছে, আহত হাজারেরও বেশি। তারপরও এমন গাফিলতি কি করে সম্ভব?

এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা থেকেও কি শিক্ষা হয়নি ভারতীয় রেলের (Indian Railway)? প্রশ্ন আম-জনতার! যদিও এই প্রশ্নের উত্তরে আদ্রা ডিভিশনের ডিআরএম (DRM) মণীশ কুমারের (Manish Kumar) দাবি, এখানে চালকের গাফিলতির কারণেই এই দুর্ঘটনা। সিগন্যাল রেডই দেওয়া ছিল। সম্ভবত চালক ঘুমিয়ে পড়েছিলেন, আসল বিষয়টি কি তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: