কমিশনের নিষেধাজ্ঞা অনুযায়ী আগামী চব্বিশ ঘণ্টায় ভোট প্রচার করতে পারবেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, ধর্নায় বসলেন মুখ্যমন্ত্রী—

HnExpress প্রিয়দর্শী সাধুখাঁ, কলকাতা ঃ আবার সেই ধর্নায় বসলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ১০ বছর আগেও বাংলার মানুষ দেখেছিল, সিঙ্গুর ও নন্দীগ্রামে ধর্নায় বসে টাটাদের ন্যানো কারখানা তৈরি করতে বাধা দান করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যার ফলাফল স্বরূপ আজ বাংলার মসনদে আসীন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিরোধীদের কথায়, টাটারা শিল্প না করে চলে যাওয়াতে বাংলার ভবিষ্যত সেই দিনই কবরে পুঁতে দেওয়া হয়েছিল।

আজও কয়েক একর জমি খালি পড়ে আছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই বাংলার খাদ্য তালিকায় থাকা বাঙালির ভাতের চাল বাইরে থেকে আমদানি করতে হয়। কারণ তা পরিমান মতো উৎপাদন হয় না বাংলায়, সেই ভিত্তিতে কৃষি নির্ভরতার থেকে শিল্প নির্ভর হওয়া ভালো ছিল বাম মুখ্যমন্ত্রীর ভাবনাতে। যদিও এবারের ধর্নার কারন সম্পূর্ণ আলাদা। নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞা অনুযায়ী আগামী ২৪ ঘণ্টায় প্রচার করতে পারবেন না নন্দীগ্রাম বিধানসভার প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে মঙ্গলবার বেলা ১২টা থেকে ধর্নায় বসতে চলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইটে লিখেছেন, ‘নির্বাচন কমিশনের অগণতান্ত্রিক এবং অসাংবিধানিক সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আগামীকাল বেলা ১২টা থেকে গান্ধীমূর্তির পাদদেশে ধর্নায় বসব।’ যদিও প্ররোচনামূলক মন্তব্যের জেরেই এই নিষেধাজ্ঞা বলে জানাচ্ছে কমিশন। এদিন রাত ৮টা থেকে পরদিন রাত ৮টা পর্যন্ত প্রচার করতে পারবেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

গত ৩রা এপ্রিল এক নির্বাচনী সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলে ছিলেন, “সংখ্যালঘু ভাই বোনদের কাছে হাত জোড় করে বলছি বিজেপির কাছ থেকে যে শয়তানরা টাকা নিয়েছে, তাদের কথা শুনে সংখ্যালঘু ভোট ভাগ করবেন না।” মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্যের জেরেই নির্বাচন কমিশনে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মুখতার আব্বাস নকভির নেতৃত্বে অভিযোগ জানায় তাদের প্রতিনিধি দল। এই ঘটনায় ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘আজ গণতন্ত্রের জন্য কালো দিন।’

সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন প্রতিবাদ করে টুইটারে লেখেন, ‘১২ই এপ্রিল, গণতন্ত্রের কালো দিন।’ এছাড়াও তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, ‘বিজেপির শাখা সংগঠন নির্বাচন কমিশন কুৎসিত ভাবে সত্যের কন্ঠরোধের চেষ্টা করছে। কুৎসিত রকম ভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে। তার প্রতিবাদ করায় এই পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। এই অপচেষ্টা সফল হবে না।’
কমিশনের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানালেও নিয়ম না ভেঙেই প্রচার চালাবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাত আটটার পর প্রচারে নিষেধাজ্ঞা উঠলেই বারাসত ও ডাবগ্রাম-ফুলবাড়িতে জনসভা করবেন বলে জানা গেছে।

Leave a Reply

Latest Up to Date

%d bloggers like this: