আফগানিস্তানের ৬০০ যাত্রী মার্কিন বিমানে, জারি বাঁচার লড়াই



HnExpress নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ গত রবিবার অর্থাৎ ১৫ই অগাস্ট ভারতের ৭৫তম স্বাধীনতা দিবসের দিন যখন সারা দেশ দিনটি পালনে আনন্দে আপ্লূত, তখন আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখল করে নেয় তালিবানরা। বিনা প্রতিরোধেই, বিনা যুদ্ধেই দেশ ছেড়ে পালিয়ে গেছেন প্রেসিডেন্ট আশরফ গনি।কাপুরুষের মত পালিয়ে পদত্যাগ করে মুখ লুকিয়েছেন বিদেশে গিয়ে। গোটা আফগান জুড়ে দখল এখন তালিবানদের।

যার ফলে চরম বিশৃঙ্খলা ও অরাজকতার সৃষ্টি হয়েছে দেশের প্রতিটি গ্রাম, মফস্বল থেকে শুরু করে শহরের অলিতে-গলিতে। এই পরিস্থিতিতে দেশ ছাড়তে মরিয়া আফগানী বাসিন্দারা। তাঁরা যে বাঁচার তাগিদে ঠিক কতটা মরিয়া, তার প্রমাণ মিলেছে কাবুল বিমানবন্দর থেকে ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে। 



এরই পাশাপাশি ভাইরাল হল আরও একটি ছবি। যেখানে দেখা যাচ্ছে, মার্কিন সেনা বিমানে গাদাগাদি করে বসে রয়েছেন প্রায় ৬৪০ জন মানুষ। এর আগে মার্কিন বায়ুসেনার সি-১৭ গ্লোবমাস্টারে এক সঙ্গে এত জন কখনও চাপতে দেখা যায়নি। কিন্তু এখন আফগানিস্তান এর পরিস্থিতি একেবারে বিভৎস ভয়াবহ। এই ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে, বিমানের মাটিতে বসে রয়েছে অন্তত ৬০০ জন আফগানী।

বাঁচার লড়াইয়ে মরিয়া হয়ে বেশ কয়েক জন মহিলা কোলে শিশুদের নিয়ে বিমানে বসে রয়েছেন। সকলের মুখেরই স্পষ্টত আতঙ্কের ছাপ। সঙ্গে তেমন কোনো জিনিসপত্রও নেই। অর্থাত্‍ এক কাপড়েই ঘর ছেড়েছেন তাঁরা। সারা জীবনের সঞ্চয়ের সাথে সাথে নিজেদের ভিটে-মাটিটুকু পর্যন্ত ছেড়ে এসেছেন নিজেদের জন্মভূমিতে। ছেড়ে এসেছেন আত্মীয়, পরিজন, পড়শি, হয়তো খুব কাছের নিজের লোককেও। এখন জারি শুধু নিজের বেঁচে থাকার লড়াই।

তালিবানদের থেকে প্রাণ বাঁচাতে আজ ঠিক এতটাই মরিয়া তাঁরা। মার্কিন বায়ুসেনার নিউজ ওয়েবসাইট সুত্রে জানা গিয়েছে, এই বিমানটি আফগানীদের কাতার বিমানবন্দরে নামিয়ে দিয়েছে। সোমবার কাবুল বিমানবন্দরের কিছু ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। সেখানে দেখা গিয়ে ছিল কাতারে কাতারে আফগানীরা পরিমরি করে ছুটছেন বিমানের দিকে। বিমান বেয়ে উঠে পড়ছেন দরজার দিকে। উদ্দেশ্য একটাই, যেনতেন প্রকারে বিমানে জায়গা পাওয়া। এদিকে চলন্ত বিমানের সামনে থেকে লোক সরাতে হেলিকপ্টারকে কাজে নামতে হয়েছে। 

Leave a Reply

%d bloggers like this: