বজ্রবিদ্যুৎ সহ হতে পারে কালবৈশাখী, ঘন্টায় ৫০ কিমি গতিবেগে বইবে ঝোড়ো হওয়া ঃ জানাল আবহাওয়া দপ্তর

HnExpress ১৪ই মার্চ, জয় গুহ, ওয়েদার রিপোর্ট ঃ শনিবার এবং রবিবার আসছে ঘোরতর বর্ষার প্রাক্ আগমন। এই আবহাওয়ার কথা আগাম জানিয়ে দিল আবহাওয়া অফিস। কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের সব জেলাতেই বজ্রবিদ্যুৎ সহ ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বজ্র বিদ্যুতের সঙ্গে হতে পারে কালবৈশাখী ঝড়, ঘন্টায় ৪০ থেকে ৫০ কিমি গতিবেগে বইতে পারে ঝোড়ো হাওয়া।

কালবৈশাখীর আগাম পূর্ভাবাস দিল হাওয়া অফিস। আগামী ৪৮ ঘণ্টার ধরে হতে পারে বজ্রবিদ্যুৎ সহ প্রবল ঝড়বৃষ্টি। দক্ষিণবঙ্গ এবং উত্তরবঙ্গের প্রায় সব জেলাতেই হতে পারে বৃষ্টি। শনিবার এবং রবিবার এই দুইদিনই ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে হাওয়া অফিস সুত্রের খবর। কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রয়েছে ২২.২ ডিগ্রি। সকাল থেকেই মেঘলা আকাশ থাকবে। তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে আকাশ আরও মেঘলা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এদিন। নদিয়া, মুর্শিদাবাদ এলাকায় রবিবার বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলেও জানা গেছে।

 

 

মূলতঃ পশ্চিমী ঝঞ্ঝা কাশ্মীরে ঢুকে রাজস্থানের ওপর একটি নিম্নচাপ তৈরি করেছে। আর এই নিম্নচাপ ধীরে ধীরে আরব সাগর ও পরে বঙ্গোপসাগর থেকে জলীয় বাষ্প সংগ্রহ করে প্রবল আকার ধারণ করচ্ছে। যার জেরেই প্রতিদিনই বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে সুত্রের খবর। শনি, রবি এবং সোমবার সব জেলাতেই হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হবে বলে জানায় হাওয়া অফিস। তবে আগামী ২-৩ দিন রাতের তাপমাত্রার সেরকম কোনও পরিবর্তন নাও হতে পারে।

কিন্তু দক্ষিণবঙ্গে বজ্র বিদ্যুতের সঙ্গে ঘন্টায় ৪০ থেকে ৫০ কিমি গতিবেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে। এবং উত্তরবঙ্গেও ঘন্টায় ৩০ থেকে ৪০ কিমি বেগে ঝোড়ো হাওয়া চলার সম্ভাবনা রয়েছে। অন্যদিকে আবহবিদরা জানিয়েছেন তাপমাত্রার পারদ চড়বে সারা মার্চ-এপ্রিল-মে মাস জুড়েই। এই তিন মাসেই তাপমাত্রা থাকবে স্বাভাবিকের থেকে অনেক বেশি। এছাড়া উত্তর, উত্তর-পশ্চিম এবং মধ্য ভারতের পাশাপাশি দক্ষিণ ভারতের বিভিন্ন অংশেও এবার ব্যাপক গরম পড়বে৷

 

 

এরই পাশাপাশি শহর কলকাতার তাপমাত্রাও বাড়বে বলে জানায় হাওয়া অফিস। বেশকিছু জায়গায় তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি করে বাড়বে, তো আবার কোথাও কোথাও সেই তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রিরও বেশি বাড়বে। তবে অতিরক্ত গরম না পড়ার সম্ভাবনাই বেশি। গরম বাড়লেও তাপমাত্রার পরিবর্তন কিন্তু থাকবেই। তারপমাত্রা কখনো বাড়বে, আবার কখনো কমবে। কারণ বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি থাকবে তাই।

 

Leave a Reply

%d bloggers like this: