পৃথিবীর ধ্বংস কি করোনা নাকি গ্রহাণুর হাতে?

HnExpress ২৭শে মার্চ, অভিষেক চট্টোপাধ্যায় ঃ করোনার মারণ থাবায় যখন বিশ্ব বিপর্যস্ত, দিন দিন যখন এক প্রকার মৃত্যুপুরীতে পরিণত হচ্ছে আমাদের মানব সভ্যতা। ঠিক সেই সময় আরেক অশনি সংকেত শোনাল মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। তারা জানিয়েছেন, পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে এক বিশাল আকার গ্রহাণু। পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসা এই গ্রহাণুর নাম নাসার তরফ থেকে দেওয়া হয়েছে আসটেরোইড ৫২৭৬৮। তবে কি পৃথিবীর ধ্বংস করোনা নাকি গ্রহাণুর হাতে? বিস্তারিত জেনে নিন এক নজরে —

 

 

নামে গ্রহাণু হলেও তার আকার খুব একটা কম নয়। তাই ঘন্টায় কুড়ি হাজার মাইল বেগে পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসলে পৃথিবীর কোন ক্ষতিই যে হবে না, এমন কথা হলফ করে বলতে পারছেন না বিজ্ঞানীরা। যদিও তারা অনুমান করে বলছেন, পৃথিবীর সাথে সংঘর্ষের সম্ভাবনা কম, তবে একেবারেই যে নেই সেই ব্যাপারে এখনও নিশ্চয়তা কম। তবে বিজ্ঞানীরা বলছেন পৃথিবীর কক্ষপথের ৩.৯ লক্ষ মাইলের ভিতর তার আসার সম্ভাবনা কম। গ্রহাণুটির ব্যাস ১.১ থেকে ২.৫ মাইল।

 

 

যদি পৃথিবীর সাথে সংঘর্ষ নাও হয়, তাহলেও এই গ্রহাণুর প্রভাব পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রের উপর পড়তে পারে। অনেক বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, এই গ্রহাণুর প্রভাবে বিশ্বের কিছু অংশে কিছুক্ষনের জন্য সূর্যালোক বাঁধা পেতে পারে, তখন একাংশে আলো, আর অন্য অংশে অন্ধকার সৃষ্টি হতে পারে। তবে নাসার তরফ থেকে জানানো হয়েছে প্রায় ০.০৪৪৫৩ অ্যাস্ট্রোনোমিক্যাল ইউনিট দূরত্ব রেখেই পৃথিবীকে টপকে যাবে সেই গ্রহাণু। নাসার সাথে সাথে ইউরোপিয়ান মহাকাশ বিজ্ঞানীরাও এই গ্রহাণুকে নজরে রেখেছেন। তবে শেষ মুহূর্তে গ্রহাণু দিক পরিবর্তন করলে পৃথিবীর মহাবিপদের সম্ভাবনা আছে বৈকি।

 

 

Leave a Reply

Latest Up to Date

%d bloggers like this: