কেউ তো জানেনা, মনেরই ঠিকানা

HnExpress সম্রাট গুপ্ত, কলকাতা : “একদিন দল বেঁধে ক’জনে মিলে– যায় ছুটে খুশিতে হারাতে। এই পথ খুঁজে, সব ভয় মুছে– কেউ তো জানেনা মনেরই ঠিকানা।“

তিনটি বড় সরকারি বাস আর একগুচ্ছ গাড়ি করে বড়সর একটি দল ঘুরে এল সিঙ্গুর। হ্যাঁ হুগলির সেই সিঙ্গুর। কলকাতা প্রেস ক্লাব ওই সিঙ্গুরে টাটার প্রস্তাবিত কারখানার কাছেই একটা বাগানবাড়ির ব্যবস্থা করেছিল। রবিবার, ২০ জানুয়ারি সেখানেই হল কলকাতা প্রেস ক্লাব আয়োজিত বাৎসরিক চড়ুইভাতি।

নিজস্ব চিত্র।

নাচ-গান-খানা-পিনা সবই ছিল বিস্তর। ছিল হরেক রকম প্রতিযোগিতাও। ছোট্ট কথায় বলা যায় আনলিমিটেড এন্টারটেনমেন্ট। ২-৭ বছরের বাচ্চাদের জন্য ছিল ‘বল ছোঁড়ো‘ প্রতিযোগিতা। প্রায় ২০ ফুট দূর থেকে উইকেট লক্ষ্য করে ছুঁড়তে হবে বল। ফুট তিন ব্যবধানে দুটি উইকেটের মাঝ দিয়ে লাথি মেরে ফুটবল পাঠাতে হবে, ৮-১৫ দের জন্য ছিল এই ‘কিক দ্য বল‘।

নানা বয়সের প্রায় ১০০ মহিলা চক্রাকারে দল বেধে দাঁড়িয়ে অংশ নিলেন ‘পাসিং দ্য বল’-এ। হাতে হাতে একজনের কাছ থেকে অপর জনের হাতে চলে যাচ্ছে বল। আচমকা মিউজিক থেমে যাওয়ার সময় যাঁর হাতে বল, তিনি আউট। এই খেলায় ফার্স্ট হল আকাশবানীর শ্রাবনী পালিত।

আবার অন্যদিকে, ‘লাল ঝুঁটি কাকাতুয়া‘ থেকে‘ ‘প্রজাপতি প্রজাপতি আমার ইচ্ছে করে‘, ’তোমায় হৃদমাঝারে রাখব ছেড়ে দেব না‘ থেকে ‘শোন মন বলি তোমায়’, ‘লায়লা হো লায়লা’— প্রভৃতি গানের তালের সাথে ছিল কোমড় দোলানোর সব রকম উপাদান। মধ্যাহ্ণভোজের পর ছিল পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান।

Leave a Reply

Latest Up to Date

%d bloggers like this: